ঢাকা, রবিবার , ১৯ আগস্ট ২০১৮, | ৪ ভাদ্র ১৪২৫ | ৭ জিলহজ্জ ১৪৩৯

সূর্য ছোঁয়ার মিশনে নাসা

সূর্য ছোঁয়ার অভিযানে রওনা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার মহাকাশযান ‘পার্কার সোলার প্রোব’।রোববার স্থানীয় সময় ০৩:৩১ টায় (জিএমটি ০৭:৩১) ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল থেকে ডেলটা-ফোর হেভি রকেটে করে উৎক্ষেপণ করা হয় যানটিকে। এর আগে শনিবার সকালে এটি উৎক্ষেপণ করার কথা থাকলেও সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়।

ছোট্ট গাড়ির আকারের এ যান যাত্রা শেষে সূর্যের অনেক কাছে পৌঁছবে। সূর্যের বহিরাবরণ ‘করোনা’র ভেতর দিয়ে যাবে যানটি। মানুষের তৈরি কোনো যান সূর্যের এত কাছে এখনো পৌঁছতে পারেনি।

এজন্যই এ অভিযানকে বলা হচ্ছে ‘সূর্য ছোয়াঁর মিশন’(টাচ দ্য সান)। তাছাড়া, এই প্রথম কোনো জীবিত ব্যক্তির নামে মহাকাশযান পাঠাল নাসা।

যানটির নামকরণ করা হয়েছে এস্ট্রোফিজিসিস্ট ইউজিন পার্কারের নামে। ৯১ বছর বয়সী পার্কার ১৯৫৮ সালে প্রথম সৌর বাতাস সম্পর্কে ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন।

সূর্যের ইতিহাস জানতে হলে সূর্য সম্পর্কে আরো ভালোভাবে জানা জরুরি। এদিক থেকে ‘পার্কার সোলার প্রোব এর মিশনটি গুরুত্বপূর্ণ। নভোযানটিতে সূর্যকে সরাসরি পর্যবেক্ষণ করার যন্ত্র রয়েছে।

সোলার উইন্ড প্রবাহের রহস্য ভেদ করা এবং সূর্যকে ঘিরে থাকা গ্যাসের তীব্র তাপমাত্রার রহস্য উন্মোচন করাও এ অভিযানের লক্ষ্য।

পার্কার সোলার প্রোব’ উৎক্ষেপণের পর উচ্ছ্বসিত ইউজিন পার্কার বলেন, ওয়াও, আমরা যাচ্ছি! আগামী অনেক বছর জন্য এ যাত্রা থেকে আমরা জ্ঞানার্জন করতে যাচ্ছি। নিজের চোখে মহাকাশযানটির উৎক্ষেপণ দেখেছেন তিনি।

রোববার উৎক্ষেপণের ঘণ্টাখানেক পর নাসা কর্তৃপক্ষ মাহাকাশযানটি সফলভাবে রকেট থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে মহাকাশে রওয়ানা হওয়ার খবর নিশ্চিত করে।

সাত বছর ধরে সূর্যকে ঘণ্টায় ৬৯০,০০০ কিলোমিটার গতিতে ২৪ বার প্রদক্ষিণ করে গবেষণা চালাবে পার্কার প্রোব। সূর্যপৃষ্ঠের ৬১ লাখ ৬০ হাজার কিলোমিটার দূর থেকে তথ্য সংগ্রহ করবে এটি।

এ প্রকল্পের বিজ্ঞানী ড. নিকি ফক্স বলেন, এ দূরত্বকে নিকট দূরত্ব বলে মনে না হলেও যদি ধরে নেওয়া হয় পৃথিবী এবং সূর্যের দূরত্ব এক মিটার, তাহলে পার্কার প্রোব সূর্য থেকে মাত্র ৪ সেন্টিমিটার দূরে থাকবে।

আজ ২৪ ডেস্ক


%d bloggers like this: