ঢাকা, বুধবার , ১৭ জুলাই ২০১৯, | ২ শ্রাবণ ১৪২৬ | ১৩ জিলক্বদ ১৪৪০

অভিনব কচ্ছপ

সামিয়া লাকি: মিতানি হিসাও নামের একজন ভদ্রলোক। তিনি জাপানের টোকিও শহরের বাসিন্দা। নিয়মিত হাঁটাহাঁটি করেন। শরীরচর্চা করেন। তবুও তার উপরে সবার এতো আগ্রহ। কারণ একটাই—তার কচ্ছপ। মিতানি একা হাঁটেন না, সঙ্গে নিয়ে নেন কচ্ছপটিকে। এটাও সাধারণের মতো নয়। অনেকটা অদ্ভুত। মিতানি শহরের রাস্তায় বেরোলেই তার কচ্ছপের জন্য সবাই তার দিকে তাকিয়ে থাকে। আগ্রহী হয় কথা বলার জন্য। এই ব্যাপারটাও মিতানি উপভোগ করেন। এই কচ্ছপটাকে তিনি আর তার স্ত্রি সন্তানের মতো রাখেন। তাদের আর কোন সন্তান হয়নি। অনেক আগে, যখন কচ্ছপটি মাত্র পাঁচ সেনন্টিমেটার, তখন একে কোত্থেকে যেনো নিয়ে আসেন তার স্ত্রী। এরপর থেকে এই কচ্ছপটি তাদের ঘরের একজন রুটিনমাফিক সদস্য। মিতানি এর নাম রেখেছেন বোনচান। বোনচান এখন পঁচাত্তোর সেন্টিমেটার। ওজনও কম না, সত্তোর কেজি।

বোনচানের কাজ-কারবার দেখে অবাক না হয়ে পারা যায় না। সাধারণত অনেক ধীরগতির একটা প্রাণি হলেও মিতানির প্রিয় বোনচান তার মতোই দ্রুত হাঁটে। টোকিওর এই পথটা তার চেনা, সেই মিতানিকে চিনিয়ে নেয়।

আরো আশ্চর্যের কথা হলো, কচ্ছপটি কোন সুন্দর নারী দেখলেই তার পিছু নেয়। মিতানিকে ওইখানে নিয়ে যেতে সাহায্য করে। এইসব মজার কাহিনির কারণে অনেক সামাজিক মাধ্যমেই মিতানি আর তার কচ্ছপ একটি বিশেষ আলোচনার বিষয়। এটি আফ্রিকান জাতের কচ্ছপ ছিলো। মিতানির সংসারে আসার ফলে তার বেশ নামডাক হয়েছে। বোনচান কি তাহলে এটার কারণে আনন্দিত?

 

আজ/৩০১


%d bloggers like this: