ঢাকা, রবিবার , ১৮ নভেম্বর ২০১৮, | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ৯ রবিউল-আউয়াল ১৪৪০

ইরানের ১৪ নিরাপত্তা কর্মকর্তা পাকিস্তান সীমান্তে অপহৃত

পাকিস্তান সীমান্তে

ইরানের শীর্ষ নিরাপত্তা বাহিনী বিপ্লবী গার্ডের গোয়েন্দা কর্মকর্তাসহ ১৪ জন নিরাপত্তা কর্মকর্তা পাকিস্তান সীমান্তে অপহৃত হয়েছেন। আল কায়েদা সমর্থিত জয়েশ আল আদল নামে একটি গোষ্ঠী এই অপহরণের দায় স্বীকার করেছে।
মঙ্গলবার বিপ্লবী গার্ডের এক বিবৃতে বলা হয়েছে, পাকিস্তান সীমান্ত ঘেষা সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশের মিরজাবেহ শহরের একটি সীমান্ত চৌকি থেকে তাদের কয়েক সদস্যকে অপহরণ করেছে একটি সশস্ত্র গোষ্ঠী। বিবৃতিতে অপহৃতদের সংখ্যা উল্লেখ না করলেও রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে এই সংখ্যা ১৪ বলে জানিয়েছে। ইরনার খবরে বলা হয়, ভোর চারটা থেকে পাঁচটার মধ্যে তাদের অপহরণ করে একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। আল কায়েদা সমর্থিত জয়েশ আল আদল নামে একটি গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেছে। পাকিস্তানের তরফে এই ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়ে সমন্বিত পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

পাকিস্তান সীমান্তবর্তী সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশের সীমান্তের দুপাশেইসুন্নি মতালম্বী নৃতাত্ত্বিক বালুচি সম্প্রদায়ের বাস। ইরানের শিয়া কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে তারা বৈষম্যের অভিযোগ করে থাকে। পাকিস্তানভিত্তিক বিচ্ছিন্নতাবাদী এবং সশস্ত্র গোষ্ঠী নিয়মিতভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে ইরানের নিরাপত্তা চৌকিতে অভিযান চালায়। গত সেপ্টেম্বরে বিপ্লবী গার্ডের তরফে জানানো হয়, পাকিস্তান সীমান্ত এলাকায় জয়েশ আল আদল এর দ্বিতীয় শীর্ষ নেতাসহ চার সুন্নি যোদ্ধাকে হত্যা করা হয়েছে।

সর্বশেষ অপহরণের আগে একটি অপহরণের ঘটনায় সশস্ত্র গোষ্ঠী জয়েশ আল আদল ইরানের এক নিরাপত্তা কর্মকর্তাকে হত্যা ও চার সেনা সদস্যকে দুই মাস পরে মুক্তি দেয়। অপহরণের পর তাদের পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ রয়েছে।

ইরানের রাষ্ট্রায়ত্ব নিউজ ওয়েবসাইট ইয়াং জার্নালিস্ট ক্লাবের খবরে সর্বশেষ অপহরণ প্রসঙ্গে বলা হয়, অপহৃতরা একটি নিরাপত্তা অভিযানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। পরে মুছে দেওয়া ওই খবরে জানানো হয়, অপহরণের শিকার হওয়াদের মধ্যে বিপ্লবী গার্ডের দুই নিরাপত্তা কর্মকর্তা, বিপ্লবী গার্ডের স্বেচ্ছাসেবী শাখা বাসিজ ফোর্সের সাত সদস্য ছাড়াও ইরানের নিয়মিত সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সদস্যরা রয়েছেন।

বিপ্লবী গার্ডের নিজস্ব ওয়েবসাইটে সর্বশেষ অপহরণের ঘটনা নিশ্চিত করে বলা হয়েছে, অনুপ্রবেশকারীরা এই বিশ্বাসঘাতকতার হামলা চালিয়েছে। বিপ্লবী গার্ডের স্থল বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল মোহাম্মদ পাকপোক অপহরণকারীদের খুঁজতে ইরান ও পাকিস্তানের যৌথ অভিযানের আহ্বান জানিয়েছেন। এই বিষয়ে পাকিস্তান কর্তৃপক্ষের আরও দায়িত্বজ্ঞান প্রদর্শন করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বিপ্লবী গার্ডের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা আশা করি কিছু আঞ্চলিক রাজ্যের সমর্থনপুষ্ট এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে পাকিস্তান মোকাবিলা করবে এবং অতিদ্রুত অপহৃত ইরানি কর্মকর্তাদের মুক্তি দেবে।

অপহরণের ঘটনার পর এনিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দুই পক্ষের সামরিক অভিযান বিষয়ক মহাপরিচালক পর্যায়ে এবিষয়ে সমন্বিত পদক্ষেপ নেবে। মঙ্গলবারের বিবৃতিতে বলা হয়, গত বছর সৃষ্ট একটি প্রক্রিয়ার অধীনে দুই দেশের সেনাবাহিনী ইরানের নিরাপত্তাকর্মীদের খোঁজখবর নেওয়ার চালাচ্ছে। নিরাপত্তাকর্মীদের খোঁজে ইরানি ভাইদের সহায়তায় কোনও গাফিলতি করা হবে না।


%d bloggers like this: