ঢাকা, বুধবার , ২৪ জুলাই ২০১৯, | ৯ শ্রাবণ ১৪২৬ | ২০ জিলক্বদ ১৪৪০

ঐক্যফ্রন্ট-বিএনপিতে অনৈক্য!

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী গণফোরামের দুই প্রার্থীর সংসদে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্তে ভাঙনের সুর বেজে উঠেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে।  নির্বাচনের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন, নির্বাচিত এমপিরা শপথ নেবেন না। কিন্তু মহাসচিব এটা পরিষ্কার করেননি তাদের জোটের মিত্র গণফোরামের নির্বাচিত দুই এমপি সংসদে যাবেন কি না।

মহাসচিবের বক্তব্যের ঠিক দুদিন পর ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন তার দলের এমপিদের শপথ নেওয়ার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন। এ অবস্থায় গণফোরামের দুই সদস্য সংসদে যাওয়ার খবরে ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্কে ফাটল ধরেছে কি নাÑ তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে আলোচনার জন্ম হয়। ঐক্যফ্রন্ট যেখানে নির্বাচনের ফলাফলকে প্রত্যাখ্যান করেছে, তার সঙ্গে সেই জোটের দুই এমপি সংসদে যাওয়ার বিষয়টি সাংঘর্ষিক বলে অনেকে মনে করছেন। এই প্রেক্ষাপটে প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কি বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের মধ্যে সম্পর্ক শেষ হতে চলেছে।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় বিএনপির দুই নেতার সঙ্গে, তারা বিষয়টিতে প্রকাশ্যে এখনো কোনো কথা বলতে রাজি হননি। তারা মনে করছেন, বিষয়টি জোটের বৈঠকে আলোচনা হলেই কেবল বোঝা যাবে আসলে তারা কোন গ্রাইন্ডে সংসদে যেতে চান। এ বিষয়ে কথা হয় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ড. কামালের অবস্থানের বিষয়ে আমি কিছু জানি না। তাদের দল যদি সংসদে যেতে চায় সে ব্যাপারে আমার ব্যক্তিগত কোনো মত থাকার কথা নয়। এটা নিয়ে জোটের বৈঠকে কথা হতে হবে। শুনেছি ড. কামালও বলেছেন এ নিয়ে তিনি জোটের বৈঠকে কথা বলবেন।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সঙ্গে। তিনি নোয়াখালী থেকে ঢাকার পথে থাকায় ফোন রিসিভ করেননি।

বিএনপির একটি সূত্র জানায়, সত্যিই যদি গণফোরামের দুজন সংসদে যেতে রাজি হন, তাহলে এটা হবে বিএনপির জন্য একটি আত্মহত্যার শামিল। দলগতভাবে এ নির্বাচন বর্জনের জন্য বিএনপির সিনিয়রদের ওপর চাপ থাকলেও তারা সেটি এড়িয়ে গেছেন। এখন তারাই যদি সংসদে যেতে চান, তাহলে এটা বিএনপির রাজনীতির জন্য আরো একটি ধন্যতা বলেই প্রমাণিত হবে।

এদিকে গণফোরামের সংবাদ সম্মেলন থেকে জানা যায়, বিএনপিকে রেখেই সংসদে যাচ্ছে গণফোরাম। এমনটিই ইঙ্গিত দিয়েছেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট সাত আসনে জয় পায়। ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক গণফোরাম দুই আসনে জয় পায়। এর মধ্যে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে সুলতান মনসুর এবং গণফোরামের নিজস্ব প্রতীক উদীয়মান সূর্য নিয়ে মোকাব্বির খান নির্বাচিত হন। এ ছাড়া বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলসহ পাঁচজন নির্বাচিত হন।

বিএনপির এ পাঁচজনকে রেখেই গণফোরামের দুই সদস্য এমপি হিসেবে শপথ নিচ্ছেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন ড. কামাল।

শনিবার রাজধানীর শিশুকল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে গণফোরামের বর্ধিত সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ ইঙ্গিত দেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল বলেন, সুনির্দিষ্ট আলোচনার মাধ্যমে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। আমার নিজের ধারণা, সংসদে যাওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, আমরা নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছি ঠিকই কিন্তু আমাদের প্রার্থীরা বিরোধী দল থেকে জয়লাভ করেছেন। এটা তাদের জন্য অনেক বড় অর্জন। যে প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে তারা নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন, এ জন্য আমি তাদের অভিনন্দন জানাই। আমি আবার বলছি, তাদের সংসদে যাওয়ার বিষয়ে আমার চিন্তাধারা ইতিবাচক।
সংসদে যাওয়ার সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ঐক্যফ্রন্টের দ্বিধাবিভক্তি হবে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি না আমাদের মধ্যে এমন কিছু হবে।’

আজ ২৪ প্রতিবেদক, ঢাকা


%d bloggers like this: