ঢাকা, বুধবার , ২৪ জুলাই ২০১৯, | ৯ শ্রাবণ ১৪২৬ | ২০ জিলক্বদ ১৪৪০

কুপ্রস্তাবের জেরে এফডিসিতে দুই নির্মাতার হাতাহাতি

কালারস রিপোর্ট ● সাদিয়ার বিষয়ে অনেকে অনেক কথা বলছে, তুই এর প্রতিবাদ করিসনি কেন? তোর জন্য সকল পরিচালক ও প্রযোজকদের খারাপ কথা শুনতে হচ্ছে। তাহলে তুই মনে হয় এমন প্রস্তাব দিয়েছিলি…’ বিষাক্ত ইয়াবা সিনেমার পরিচালক এম কে জামানকে উদ্দেশ্যে করে বিপ্লব শরীফের এ কথা থেকে হাতাহাতির ঘটনার সূত্রপাত।

বুধবার দুপুরে এফডিসিতে পরিচালক সমিতির সহসভাপতি সোহানুর রহমান সোহান, মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার, সিনিয়র পরিচালক জাকির হোসেন রাজুর উপস্হিতে পরিচালক জামানকে মারধর করেন সহকারি পরিচালক বিপ্লব শরীফ। অবশ্য উপস্থিত সকলেই তাদেরকে শান্ত করেন বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, বিষাক্ত ইয়াবা সিনেমার পরিচালক এম কে জামান ও প্রযোজক আকাশ-রনি অভিনেত্রীকে কুপ্রস্তাব দিয়েছেন এমন খবরে বেশ চড়াও হয়েছে মিডিয়া পাড়া। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেও এ নিয়ে শুরু হয় বিভিন্ন মন্তব্য। এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনাও। আর এ বিষয়টিই সিনেমাটির পরিচালক থেকে জানতে চেয়েছিলেন সহকারি নির্মাতা বিপ্লব শরীফ।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সহকারি নির্মাতা বিপ্লব শরীফ আজ-কে বলেন, ‘এম কে জামানের জন্য সকল পরিচালক ও প্রযোজকে নোংরা কথা শুনতে হয়েছে। সবাইকে ছোট করেছে সে। ফলে চলচ্চিত্র নির্মাতাদের ঢালাওভাবে বদমান ছড়িয়ে পড়েছে। তাই এ বিষয়ে জামানের কাছে জানতে চাইলে তার সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে অবশ্য সিনিয়র পরিচালকদের হস্তক্ষেপে বিষয়টি সমাধান হয়।’

সাদিয়া আইটেম

এ প্রসঙ্গে পরিচালক সমিতির মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘শরীফ ও জামান দুজনই কাজী হায়াৎ সাহেবের শিষ্য। এ জন্যই হয়তো শরীফ জামানকে বলেছিল। বিষয়টি ওখানেই মীমাংসা করা হয়েছে।’

তবে এ বিষয়ে মারধরের শিকার নির্মাতা এম কে জামানের মোবাইলে বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

আজ/এমসি/১০৪


%d bloggers like this: