ঢাকা, বুধবার , ২৪ জুলাই ২০১৯, | ৯ শ্রাবণ ১৪২৬ | ২০ জিলক্বদ ১৪৪০

মারভেলাস মিমো

ভাদ্র মাসের শেষ দিনের মধ্যরাত ১৩৯৮, চট্রগ্রাম সিএমএইচ হাসপাতালে জন্ম নেয় এক ফুটফুটে কন্যা শিশু। জন্মের পর সব শিশুর প্রথম আলিঙ্গন মায়ের সাথে হলেও এই শিশুটির প্রথম আলিঙ্গন হয় তার বাবার সাথে। মায়াবী এই শিশুটির নাম রাখা হয় লামিয়া সিদ্দিকী মিমো। পরিবারের সবাই আদর করে ‘মিয়াও’ বলে ডাকতেই বেশি পছন্দ করতো। জন্মের পর থেকে ক্লাস সিক্সে পড়ালেখা করা পর্যন্ত সময়টা পার করেন চট্রগ্রামে। সেখানে পড়াশোনা করেন বিএন স্কুল এন্ড কলেজে। এসএসসি পরীক্ষা পর্যন্ত পড়াশোনা করেন বিএন স্কুল এন্ড কলেজ, খুলনা থেকে। সরকারি পাইওনিয়ার মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি শেষ করেন বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে। এরপর চলে আসেন ঢাকায়, ভর্তি হন স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে। গেলো বছরই তিনি ইংরেজীতে অনার্স শেষ করেছেন। মিমোর বাবা আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ছিলেন নৌবাহিনী অফিসার। বাবার স্বপ্ন ছিলো মেয়ে বড় হয়ে নৌবাহিনীর অফিসার হবে। মা পারভিন সুলতানা চাইতেন, মিমো হবে ডাক্তার। বাবার স্বপ্নের সাথে মিমোর ইচ্ছার মিল থাকলেও, ছোটবেলা থেকেই নাচের প্রতি দুর্বলতাটা বোধকরি একটু বেশিই ছিলো মিমোর। আর তাই তিনি এখন বিনোদন জগতের জনপ্রিয় তারকা। ছোট্টবেলায় একটা একাডেমিতে একক নাচের প্রোতিযোগিতায় প্রথম হন মিমো। সেই থেকেই শুরু। একাদশ শ্রেণীতে পড়ার সময় কোনো একদিন ক্লাসশেষে বাসায় ফিরে চোখ বুলাচ্ছিলেন প্রথম আলো পত্রিকায়, খানিক বাদে মা এসে একটি বিজ্ঞপ্তি দেখিয়ে বলেল, ‘এইখানে তোর নামে রেজিস্ট্রেশন করে দিয়েছি’। সেটি ছিলো এনটিভি ‘সুপার হিরো সুপার হিরোইন’ প্রতিযোগিতার। বিষয়টি খুবই হালকাভাবে দেখেছিলেন মিমো। তাই অডিশন দেবার এসএমএস পেয়েও অনাগ্রহ নিয়েই মায়ের অনুরোধে পড়ন্ত দুপুরে রিক্সায় চেপে রওনা হন সকাল ৯টার সেই অডিশন দিতে। অডিশনের বিশাল লম্বা লাইনে কিছুক্ষণ দাড়িয়ে থেকে ক্লান্ত হয়ে বাসায় ফেরার জন্য মনস্থির করেন। কিন্তু কথায় তো রয়েছে, ভাগ্যের লিখন না যায় খণ্ডন। বাসায় ফিরবার জন্য রিক্সা ঠিক করার সময় চোখে পড়ে গেলেন নির্মাতা তানভীর খান এবং সূর্যের। প্রথম দেখাতেই হয়তো বুঝে ফেলেছিলেন, একে দিয়েই হবে। তারা মিমোকে নিয়ে গেলেন সরাসরি অডিশনে। প্রথম দিনের নাচ দেখিয়েই বাজিমাত করলেন মিমো। তারপর থেকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি ‘মারভেলাস মিমোর’। পরের অডিশনে খুলনা বিভাগে প্রথম হন তিনি। তার পরের গল্পটা সাবারই জানা।

আলোকউজ্জ্বল এক বিকেলে মারভেলাস মিমোর মনকাড়া সব ছবি তুলেছেন আজ-এর ফটোজার্নালিস্ট তানভীর আহমেদ। সঙ্গে ছিলেন কলারস রিপোর্টার এবি ইমন

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 007 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 001 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 002 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 003 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 005 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 006 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 026 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 008 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 010 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 014 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 013 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 015 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 017 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 018 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 019 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 025 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 024 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 023 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 022 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 020 aaj24

Lamia Mimo লামিয়া মিমো 021 aaj24

আজ/এবিই/টিএ/এমকে/৩০৪

ফেসবুকে আজ facebook/aaj24fan


%d bloggers like this: