ঢাকা, মঙ্গলবার , ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, | ৪ পৌষ ১৪২৫ | ১০ রবিউস-সানি ১৪৪০

মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক নিয়ে নিরন্তর বাড়ছে গ্রাহক অভিযোগ

মোবাইল ফোনের

মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক নিয়ে গ্রাহকদের অভিযোগ নিরন্তর বাড়ছে। বিটিআরসির এক প্রতিবেদনে ক্রমশ বেড়ে চলা অভিযোগের সত্যতা মেলে।বাংলাদেশ টেলিযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তিন মাসের পরিসংখ্যান বলছে, প্রতি মাসেই মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক নিয়ে গ্রাহকদের অভিযোগ বেড়েই চলেছে । প্রতিবদেন দেখা যায়, গত তিন মাসে বিভিন্ন অপারেটরের নেটওয়ার্ক সম্পর্কিত ৩০৬টি অভিযোগ করেছেন। এর মধ্যে জুলাই মাসে অভিযোগ ৮৪টি, আগস্ট মাসে ৯২টি এবং সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে ১৩০টি অভিযোগ এসেছে।

গ্রাহকরা বিটিআরসি‘র হটলাইনে ফোন করে এসব অভিযোগ করেন। প্রতিবেদন অনুযায়ী, তিন মাসে অভিযোগ এসেছে মোট ১ হাজার ৪৯৬টি। এর মধ্যে কলড্রপ নিয়ে জুলাই মাসে অভিযোগ পাওয়া গেছে ১টি, আগস্টে ৩টি এবং সেপ্টেম্বর মাসে ১টি; জুলাই মাসে কভারেজ সংক্রান্ত অভিযোগ আসে ১১টি, আগস্ট মাসে ১০টি এবং সেপ্টেম্বর মাসে ১১টি; ডাটা স্পিড নিয়ে জুলাই মাসে বিটিআরসি’র কাছে অভিযোগ আসে ১৭টি, আগস্ট মাসে ১৬টি এবং সেপ্টেম্বর মাসে ১৩টি অভিযোগ আসে; ডাটা ভলিউম ইস্যুতে তিন মাসে অভিযোগ পাওয়া গেছে ৪৯টি। এর মধ্যে জুলাই মাসে ১৪টি, আগস্ট মাসে ১৮টি ও সেপ্টেম্বর মাসে ১৭টি; ডিসকানেক্টেড কল নিয়ে অভিযোগ পাওয়া গেছে ১০টি। জুলাই মাসে ২টি, আগস্ট মাসে ৫টি ও সেপ্টেম্বর মাসে ৩টি।

মোট ২০টি ক্যাটাগরিতে গত তিন মাসে ১৪৯৬টি অভিযোগ এসেছে। এর মধ্যে সমাধান হয়েছে ১৩৬৬টির। বাকি ১৩০টি অভিযোগ সমাধানের চেষ্টা চলছে। তিন মাসে (জুলাই- সেপ্টেম্বর) সবচেয়ে বেশি এসেছে সিম বন্ধ হয়ে যাওয়া বা সিম নষ্ট হয়ে যাওয়ার অভিযোগ। তিন মাসে এ সংক্রান্ত অভিযোগ এসেছে ৩৬৪টি। জুলাই মাসে অভিযোগ পাওয়া যায় ১৬২টি, আগস্টে ১২৩টি আর সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে অভিযোগ আসে ৭৯টি।

অভিযোগের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে নেটওয়ার্ক সম্পর্কিত সমস্যা।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে বিটিআরসি’র সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া উইং) জাকির হোসেন খান বলেন, ‘যেহেতু নেটওয়ার্ক সম্পর্কে গ্রাহকের অভিযোগ বাড়ছে, তাহলে বলতে হবে নেটওয়ার্ক সম্পর্কিত সমস্যা বাড়ছেই।’

গ্রামীণ ফোনের প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা সৈয়দ তালাত কামাল বলেন, ‘বিটিআরসি‘র প্রতিবেদনটি সম্পর্কে আমরা অবহিত না। আর কোন অপারেটরের নেটওয়ার্ক সমস্যা বেড়েছে, তা আমরা বলতে পারব না। আমরা সব সময় সবচেয়ে ভালো নেটওয়ার্ক সেবা দেওয়ার চেষ্টা করি।’

দ্বিতীয় শীর্ষ অপারেটর রবি এবং অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশ’র (অ্যামটব) মন্তব্যও তাৎক্ষণিভাবে পাওয়া যায়নি। গ্রাহকদের অধিকার নিয়ে কাজ করছেন বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাাহক অ্যাসোসিয়েশন। সংগঠনটির সভাপতি মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘চলতি বছর টেলিকমখাতের বিশৃঙ্খলা বিগত বছরগুলোকে হার মানিয়েছে। ফোর-জি আসলেও নেটওয়ার্কের উন্নতি হয়নি। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে দুর্বল হয়েছে। বিটিআরসি’র আজকের প্রতিবেদনে তারই প্রমাণ।’


%d bloggers like this: