ঢাকা, সোমবার , ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, | ৯ আশ্বিন ১৪২৫ | ১৩ মুহাররম ১৪৪০

যেভাবে জসিম পিওন থেকে ‘বনখেকো’

জুতোর কারখানার পিয়ন থেকে ১৫ বছরেই বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছিলেন কিশোরগঞ্জের জমিম উদ্দিন। গাজীপুরে বনবিভাগের তিনশ’ বিঘা জমি দখল করে বহুতল ভবন ও নতুন গ্রাম গড়ে তোলেন এই ‘বনখেকো’।

সম্প্রতি গুলিতে নিহত হওয়ার পর তার অবৈধ সাম্রাজ্য গুঁড়িয়ে দেয় স্থানীয় প্রশাসন। এমন পদক্ষেপে খুশি এলাকাবাসী।

কয়েকদিন আগেও এখানে ছিল বিভিন্ন স্থাপনা। সম্প্রতি, বনবিভাগের জমি দখল করে গড়ে তোলা আবাসিক ভবন ও বাণিজ্যিক স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয় বনবিভাগ ও জেলা প্রশাসন।

অবৈধ ঘরবাড়ি উচ্ছেদের পর নিজেদের আসবাবপত্র সরিয়ে নেয় ‘বনখেকো’ জসিমের সাম্রাজ্যে দীর্ঘদিন বসবাসকারীরা।

স্থানীয়রা জানান, ১৫ বছর আগে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে একটি কারখানায় পিয়ন হিসেব চাকরি নেন কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর এলাকার জসিম উদ্দিন। ধীরে ধীরে স্থানীয় প্রভাবশালীদের সঙ্গে যোগাযোগ গড়ে তুলে বন বিভাগের জমি দখল শুরু করেন তিনি।

রহস্যজনকভাবে বাড়তে থাকে তার সম্পদ। অবৈধভাবে প্রায় দুইশ’ ৬১ বিঘা জমির শাল-গজারীর গাছ কেটে গড়ে তোলেন নতুনপাড়া নামে গ্রাম।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, ‘তার ক্যাডারবাহিনী নিয়ে, সরকারি জমি দখল করে, প্রত্যেকের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা নিয়ে ৪ শতাংশ দিয়ে হাজার হাজার বাড়িঘর গড়ে তুলেছিলেন।’

৭ সেপ্টেম্বর গাজীপুরের শ্রীপুরে বনের ভেতর থেকে জসিম উদ্দিনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। এরপরই বেরিয়ে আসে তার নানা অপকর্মের চিত্র।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বিভিন্ন সময় জসিমের অপকর্মের প্রতিবাদ করায় নির্যাতনের শিকার হয়েছেন অনেকে।

জেলা প্রশাসক জানান, অবৈধভাবে দখল হওয়া বনবিভাগের সব জমি পর্যায়ক্রমে উদ্ধার করা হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমাদের দেড়শ বিঘা উদ্ধার হয়ে গেছে, বাকিটা বন বিভাগের দখলে ছিল, চিন্তা করছি এখানে একটি ইকো পার্ক গড়ে তোলার।’

পুলিশ জানায়, বিভিন্ন সময় বনবিভাগের দায়ের করা ১৮টি মামলার মধ্যে দুটিতে সাজাপ্রাপ্ত ও ১৬টি পরোয়ানাভুক্ত আসামি ছিলো জসীমউদ্দিন।

আজ ২৪ প্রতিনিধি, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)


%d bloggers like this: