ঢাকা, মঙ্গলবার , ২৩ জুলাই ২০১৯, | ৮ শ্রাবণ ১৪২৬ | ১৯ জিলক্বদ ১৪৪০

শীতের পাখি একজন আইনজীবী ডক্টর ও কিছু অপ্রিয় কথন

সবুজ শ্যামল এই বাংলায় শীতকাল একটি বিশেষ সময় আমাদের ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক জীবনে। শীতকালেই আমাদের দেশে জাতীয় নির্বাচন হয় আবার শীতকাল এলেই সবুজ শ্যামল বাংলার গাছেরা পাতা ঝরিয়ে হয় নিরাভরণ। বহিরাবরণ ঝেড়ে ফেলে স্বরূপে প্রকাশিত হয় অধিকাংশ সুন্দর বৃক্ষরাজি। একই কায়দায় শীতের সময় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আমাদের নষ্ট, ভ্রষ্ট, অর্থ ও ক্ষমতালোভী, ছদ্মবেশী, বেঈমান রাজনীতিকগণ আস্তে আস্তে একটার পর একটা মেকি পোশাক খুলে নিরাভরণ হন ক্যাবারের ড্যান্সাদের মত।

চেতনা ব্যবসায়ী, ভণ্ড, ভ্রষ্ট, পোশাকি, অর্থ ও ক্ষমতালোভী, বেঈমান রাজনীতিক সবার কথা বলতে গেলে লেখার কলেবর একটা বইতে রূপান্তরিত হতে পারে তাই একজন তথাকথিত শীর্ষ ব্যক্তিকে নিয়েই আমার দেওয়া উপমাগুলোর সত্যতা খুঁজার চেষ্টা করা যেতে পারে। ডক্টর কামাল হোসেন নামের রাজনীতিকের জীবনের কিছু অংশের ব্যবচ্ছেদ করে দেখা যাক কী পাওয়া যায় তাতে।

ড. কামাল এদেশের এমন একজন ভণ্ড নক্ষত্র, যার নিজের রাজনৈতিক আলো নেই, যিনি আলোকিত হয়েছেন অপরের আলোয়। নিজস্ব কোনো আলো তাঁর কাছ থেকে কখনোই বিচ্ছুরিত হয় নি। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর উদারতায় তাঁরই ছেড়ে দেওয়া আসনে ১৯৭০ ও ১৯৭৩ সালে। সেই তিনিই বলেন, এই সরকার অংশগ্রহণমূলক সরকার না, অনির্বাচিত সরকার। মন্ত্রীও হন বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার একাধিক মন্ত্রণালয়ের। আইন মন্ত্রী থাকার সময় পদাধিকার বলে উনি সংবিধান প্রণয়ন কমটির সভাপতি ছিলেন, তাই সংবিধান বিশেষজ্ঞ!

তিনি মুখে মুখে মুক্তিযুদ্ধ আর স্বাধীনতার কথা বললেও মনে প্রাণে প্রায় ষোলআনাই পাকিস্তানি। টাকার লোভে, খ্যাতির লোভে পাকিস্তানি এজেন্ট হয়ে কাজ করেছেন সারাজীবন। বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পরেও তার আচরণ ছিল খুব সন্দেহজনক, যা বিখ্যাত সাংবাদিক আব্দুল গাফফার চৌধুরী তাঁর অনেক লেখায় উল্লেখ করেছেন। আমরা সে দিকে না গিয়ে সাম্প্রতিক ও অতীত কিছু ঘটনার দিকে দৃষ্টি দিতে পারি। হালের যুক্তফ্রন্ট করার আলোচনার শুরুতে তিনি বলেছেন, জামায়াতের সঙ্গে জোট থাকলে তিনি বিএনপি’র সঙ্গে জোট করবেন না। আসলে এটা কী টাকার জন্য বারগেনিং না অন্য কিছু! গত দুই দিন আগে জামাত ইস্যুতে তাঁর সুর উল্টে কিছুটা ফিকে হয়ে গেছে।

ড. কামাল হোসেনের মেয়ে ব্যারিস্টার সারা হোসেন মানবাধিকার সংগঠনের নামের আড়ালে নিজের ইহুদী স্বামীর সঙ্গে পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষভাবে লবিস্টের কাজ করেছেন, তাও জামায়াতের পক্ষে, মানবতাবিরোধীদের শাস্তি মওকুফের জন্য। এটা কি ড. কামাল হোসেন জানেন না? কেউ কি তা বিশ্বাস করবেন? আসল কথা হচ্ছে টাকা, তাও মোটা অঙ্কের টাকা। জামায়াত যে নিজেকে ইহুদী-নাসারা বিরোধী বলে জাহির করে, তাও চরম মিথ্যাচার তার প্রমাণ ব্যারিস্টার সারা হোসেনের ইহুদী স্বামীকে তাদের পক্ষে কাজ করার জন্য লবিস্ট হিসেবে নিয়োগ।

পাকিস্তানপন্থী ডক্টর কামাল হোসেনের পাকিস্তানের এজেন্ট হয়ে কাজ করার আরও অনেক তথ্য প্রমাণ পাওয়া যায় তাঁর অতীত ঘাটলে।

১। সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব ড. সা`দত হুসাইন বলেছেন, ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে, বিশেষ করে চরমপত্র অনুষ্ঠান থেকে ড. কামালকে তীব্র সমালোচনা বা প্রায় গালাগালি করে নানাবিধ প্রচার করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর পাশে ড. কামালকে কেমন যেন বেখাপ্পা মনে হচ্ছিল। তবুও বঙ্গবন্ধুর সিদ্ধান্ত। এনিয়ে নিজের মনে চুপিসারে প্রশ্ন তোলার উপরও সে দিনের সে পরিবেশে কোথায় যেন একটা মানসিক নিষেধাজ্ঞা ছিল।’

২। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং বঙ্গবন্ধুর সরকারের তথ্য, কৃষি ও যোগাযোগ মন্ত্রী শেখ আবদুল আজিজ তার লেখা বইয়ে বলেছেন, ‘… আমরা মন্ত্রিবর্গ, ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাহেব ও প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন সাহেবের নেতৃত্বে ১০ জানুয়ারি সকালে ঢাকা বিমানবন্দরে বঙ্গবন্ধুকে অভ্যর্থনা জানাই। রমনা ময়দানের জনসভাস্থলে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শোনার জন্য সকাল থেকেই মানুষের ঢল নেমেছিল।

আমরা মন্ত্রীরা জনসভার মঞ্চে উঠলাম। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ড. কামাল হোসেনও মঞ্চে উঠলেন। কামাল হোসেন মঞ্চে দাঁড়ানোর কারণে জনতা প্রতিবাদ জানায়। সে সময় বঙ্গবন্ধু আমাকে বললেন, `কামাল সম্পর্কে জনতাকে কি বলবো`? আমি তাকে বললাম, `তুমি যেটা ভালো মনে করো সেটাই বলো`।

বঙ্গবন্ধু বললেন, `ড. কামাল হোসেন আমার সঙ্গে জেলে ছিল`। আমি উত্তরে বলেছিলাম, `তাই বলো।’ বঙ্গবন্ধু বিক্ষিপ্ত জনতাকে বললেন, `আপনারা গোলমাল করবেন না। কামাল হোসেন আমার সঙ্গে জেলে ছিল।’

৩। সাবেক রাষ্ট্রদূত কামরুদ্দীন আহমদ তাঁর বইতে লিখেছেন, ‘… ঢাকায় যেদিন মুজিব ফিরে এলেন তার প্রথম কর্তব্য কাজ মনে হলো ড. কামাল হোসেনকে বাংলাদেশের বিরোধিতার অভিযোগ ও মুক্তি বাহিনীর সন্দেহ থেকে মুক্ত করা। যা তিনি প্রথম দিনকার জনসভায় বিচক্ষণতার সঙ্গেই করতে সক্ষম হয়েছিলেন।’

৪। ‘… শোনা যায়, কিসিঞ্জার চীন সফরে যাওয়ার পথে পাকিস্তানে বন্দী তার অন্যতম উপদেষ্টা ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে কথা বলেছিলেন। আদৌ বলেছিলেন কি? বলে থাকলে তার বিষয়বস্তু কি ছিল তাও জানা দরকার। ড. কামাল হোসেন এখনো জীবিত আছেন। তিনি এ ব্যাপারে আলোকপাত করলে আমাদের সমকালীন ইতিহাসের ঘাটতি কিছুটা হলেও হ্রাস পাবে।’ অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. মাহবুব উল্লাহর লেখা বই থেকে নেওয়া তথ্য।

৫। সাংবাদিক জাফর ওয়াজেদ তাঁর এক লেখায় বলেন, ‘Late Maj. Gen. A. O. Mitha (who was the ‘Father of SSG’- Special Services Group) of Pak Army. তার স্মৃতি কথা ❝Unlikely Beginnings❞ এ ডক্টর কামাল হোসেন সম্পর্কে লিখেছেন— ❝On 28 March, Aman told me that he had received a message from his brother-in-law Kamal Hussain, who had disappeared on 25 March with all of Mujib’s chief lieutenants. Kamal had not gone to India with the rest of the crowed; he wanted to be taken into custody, as he was worried that his life was in danger. I collected him from the home of one of his relations and put him in the divisional HQ Mess under guard. He was flown to West Pakistan next day. When I returned to West Pakistan, I used to visit him in Haripur Jail at least once a month because he was Aman’s brother-in-law and Aman was a good friend of mine. Kamal, I did not like, in fact I despised him after the meeting I have described at a dinner at Aman’s house. Despite all his and Rehman Sobhan’s rhetoric, neither of them sheds blood, and Kamal actually asked for sanctuary from those whom he considered his enemies. Later, when Mujib was assassinated, he and Sobhan repeated their performance; Kamal disappeared to the UK and Sobhan to the USA’.

৬। রইসউদ্দিন আরিফ তাঁর রাজনীতি, হত্যা ও বিভ্রান্ত জাতি বইতে বলেন, ‘… আপনাদের স্মরণ আছে কিনা জানিনা, `৭১-এ যুদ্ধকালীন সময়ে পুরো ৯ মাস টিক্কা-নিয়াজী-ইয়াহিয়া-ভুট্টো-মোনায়েম খাঁর সাথে সাথে পাকিস্তানি সামরিক জান্তার দালাল হিসেবে কামাল হোসেনের নামটিও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র হতে ঘৃণাভরে উচ্চারিত হয়েছে। `স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র` থেকে এম আর আখতার মুকুল `চরম পত্রে`র ভাষায় `পাকিস্তানি জামাই কামাইল্লা` কে নিয়ে তিনটি চরমপত্র পাঠ করেছিলেন। এ ছাড়াও `৭০-এর নির্বাচনের পর শমসের নগর পরিত্যক্ত বিমান বন্দরে হেলিকপ্টারে বসে পাকিস্তানি সামরিক জান্তার সাথে ষড়যন্ত্র করার অভিযোগও রয়েছে কামাল হোসেনের বিরুদ্ধে। ’\

যাদের সঙ্গে মিলে মিশে ড. কামাল হোসেন ইদানীং ‘যুক্তফ্রন্ট’ করার চেষ্টা করছেন তাঁদের কয়েকজনের অতীত একটু জেনে নেওয়া যাক। সুজনের কর্তাদের বাসায় হয় ‘যুক্তফ্রন্ট’ গঠন পরিকল্পনা শুরুর দিকের অন্যতম বৈঠক। সুজন সভাপতি হাফিজ সাহেব হচ্ছেন আতাউর রহমান খান আর ‘লুকিং ফর শত্রুজ’ খ্যাত বাবর সাহেবের আত্মীয়। দৈনিক বাংলার খবরে বলা হয় যে, ১৯৭৬ এর ২৩ জানুয়ারি, বঙ্গভবনে জিয়ার উপস্থিতিতে স্বাধীনতা বিরোধী রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, ভবিষ্যৎ রাজনীতি সুসংহত করার জন্য এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। বৈঠকে উপস্থিত নেতৃবৃন্দের মাঝে উল্লেখযোগ্য যারা ছিলেন তাঁরা হলেন-আতাউর রহমান খান, আবদুস সবুর খান, ড. আলীম আল রাজী, অলি আহাদ, কাজী জাফর আহমদ, সৈয়দ আজীজুল হক (নান্না মিয়া), মাওলানা সিদ্দিক আহমদ, মাওলানা আবদুর রহীম, মিসেস আমেনা বেগম। এখানে একদার কমরেড, পরবর্তীতে হেফাজতী কাজী জাফর ছাড়া কেউ স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেননি। হালের বিএনপি’র মহাসচিব পিতা চখা মিয়া ছিল কুখ্যাত কোলাবরেটর, আর বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রিজভীর বাবা ছিল ১৯৭১ সালে রাইফেলধারী রাজাকার। এদের সাথেই ইদানীং তথাকথিত মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সৈনিক ড. কামাল হোসেনের উঠাবসা।

ড. কামাল হোসেন আর তার সাঙ্গপাঙ্গরা কিছুদিন আগে বিচারপতি সিনহার মাধ্যমে ‘ফতোয়া’ দিয়েছিলেন যে, ১৯৭২ সালে তার নেতৃত্বে তৈরি করা সংবিধান ভুল! তৎকালীন প্রধান বিচারপতি সিনহার ঘাড়ে ভর করে ‘জুডিশিয়াল ক্যু’ করতে ব্যর্থ হয়ে ইদানীং তিনি হুংকার ছাড়ছেন, আগামীতে বিচারপতি সিনহার উপর করা অবিচারের বা খারাপ ব্যবহারের বিচার করার। বিচারপতিগণ যখন কোনো মামলার রায়ের ব্যাপারে সন্দিহান থাকেন তখন তাঁরা এমিকাস কিউরি নিয়োগ দেন। আসলে এমিকাস কিউরি নিয়োগ করা মামলার রায়ে থাকে এমিকাস কিউরিদের মারাত্মক প্রভাব। আসিয়ান সিটির এমডি নজরুল ইসলাম ভুঁইয়া উত্তরায় বাড়ি কিনে দিয়েছিলেন কোনো প্রধান বিচারপতিকে, মামলার রায় নিজের পক্ষে আনার জন্য? কত টাকা দিয়ে বাড়ি কিনে দিয়েছিলেন? সে খবর কি ড. কামাল হোসেন জানেন না? নাকি সব টাকার খেলা?

লেখক: সায়েদুল আরেফিন, উন্নয়ন কর্মী ও কলামিস্ট Email: arefinbhai59@gmail.com

(লেখাটি লেখকের একান্ত নিজস্ব অভিমত। আজ ২৪-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে)


%d bloggers like this: