ঢাকা, শনিবার , ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, | ৬ মাঘ ১৪২৫ | ১২ জমাদিউল-আউয়াল ১৪৪০

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় মৃণাল সেনকে বিদায়

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় বিদায় নিলেন বিশ্ববরেণ্য চিত্রপরিচালক মৃণাল সেন। মঙ্গলবার(১ জানুয়ারি) বিকেলে দক্ষিণ কলকাতার কেওড়াতলা মহাশ্মশানে অগ্নিতে বিলীন হয়ে গেলেন। মরদেহ নিয়ে শোক মিছিলের পর এই মহাশ্মশানে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

রোববার(৩০ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় এই প্রথিতযশা পরিচালক কলকাতার ভবানীপুরের নিজ বাসভবনে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর। মৃণাল সেনের একমাত্র ছেলে কুণাল সেনের আসার জন্য তার মরদেহ কলকাতার হিমঘর পিস ওয়ার্ল্ডে রাখা হয়। সোমবার কুণাল সেন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো থেকে কলকাতায় আসার পর আজ মৃণাল সেনের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

আজ বেলা আড়াইটায় পিস ওয়ার্ল্ড থেকে তার মরদেহ সবার শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য দক্ষিণ কলকাতার দেশপ্রিয় পার্কের কাছে মতিলাল নেহরু রোডে তার সাবেক বাসভবনের সামনে আনা হয়। এই বাড়িতে জীবনের ১২টি বছর কাটিয়েছেন তিনি। এখান থেকেই তার চলচ্চিত্রে উত্থান ঘটে। পরিবারের ইচ্ছা অনুযায়ী এখানেই শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য মরদেহ রাখা হয়। তারপর এখান থেকে শোক মিছিল করে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কেওড়াতলা মহাশ্মশানে।

মতিলাল নেহরু রোডের বাসভবনের সামনে রাখা মৃণাল সেনকে শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য ছুটে আসেন কলকাতা ছবিপাড়ার শিল্পী, কলাকুশলীসহ সাহিত্য, সংস্কৃতি ও রাজনৈতিক অঙ্গনের বিশিষ্টজনেরা। সবাই তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এ সময় মরদেহের কাছে উপস্থিত ছিলেন কুণাল সেন।

মৃণাল সেনকে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন কবি শঙ্খ ঘোষ, চিত্রপরিচালক তরুণ মজুমদার, সন্দীপ রায়, অঞ্জন দত্ত, অশোক বিশ্বনাথন, অপর্ণা সেন, ত্রিদিব মুখোপাধ্যায়, সৃজিত মুখোপাধ্যায়, অনীক দত্ত, সংগীত পরিচালক দেবজ্যোতি মিশ্র, অভিনেতা প্রসেনজিৎ, কৌশিক সেন, রঞ্জিত মল্লিক, মমতা শংকর, শ্রীলা মজুমদার, মাধবী মুখোপাধ্যায়, বিপ্লব চট্টোপাধ্যায়সহ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বিমান বসু, সুজন চক্রবর্তী, বিকাশ ভট্টাচার্য, শ্যামল চক্রবর্তীসহ কলকাতার টলিউড এবং সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনের বিশিষ্টজনেরা।

সবাই মৃণাল সেনের চলচ্চিত্র অঙ্গনে অবদানের কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন। বলেন, বাংলা চলচ্চিত্র অঙ্গনের শেষ মহিরুহের পতন হয়ে গেল। শেষ হয়ে গেল সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল যুগের। সত্যজিৎ রায়ের ছেলে পরিচালক সন্দীপ রায় দাবি করে বলেন, ‘সংরক্ষণ করা হোক মৃণাল সেনের ছবিগুলো।’

নন্দিতা দাস বলেন, ‘তিনি ছিলেন আমার শিক্ষক এবং অভিভাবক। তিনি চলে যাওয়ায় আমাদের বড় ক্ষতি হয়ে গেল।’ অপর্ণা সেন বলেন, ‘তিনি ছিলেন আমার বাবার মতো। আর ফিরে পাব না তাকে।’ প্রসেনজিৎ বলেছেন, ‘মৃণাল সেনের তুলনা নেই। তিনিই আমাদের চলচ্চিত্রের পথপ্রদর্শক। বাংলা চলচ্চিত্র হারাল এক গুণী শিক্ষককে।’

আজ ২৪ ডেস্ক


%d bloggers like this: