ঢাকা, মঙ্গলবার , ১৬ জুলাই ২০১৯, | ১ শ্রাবণ ১৪২৬ | ১২ জিলক্বদ ১৪৪০

সাকিব-মাহমুদউল্লাহর ঝড়ে বাংলাদেশ ২১১

মিরপুরে দলের পক্ষে পক্ষে সর্বোচ্চ ৬০ রান করেন ওপেনার লিটন দাস। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ ও সাকিব করেন যথাক্রমে ৪৩ ও ৪২ রান। তাই বলতেই হয়, প্রথমে লিটন দাস পরে সাকিব, মাহমুদউল্লাহদের দুর্দান্ত সব স্ট্রোকে শীতের ‘ওম’ পেয়েছেন দর্শকেরা। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদের কপাল থেকে ঝরেছে ঘাম, দুশ্চিন্তার ঘাম।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার (২০ ডিসেম্বর) দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে প্রথমে ব্যাটিং করে বাংলাদেশ তুলেছে ৪ উইকেটে ২১১। এটি মিরপুরে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট সর্বোচ্চ দলীয় ইনিংসের রেকর্ড। বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ।

টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের বোলারদের পিটিয়ে ছাতু বানিয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। আজ বোধ হয় তার শোধ তুলতেই নেমেছিলেন লিটনরা। আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শেলডন কটরেলের করা প্রথম ওভারে ৯ রান তুলে ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন। তামিম অবশ্য বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। শুরু থেকেই টাইমিং করতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছিল তাঁর। পঞ্চম ওভারে শর্ট মিডউইকেটে ক্যাচ দিয়েছেন বাজে টাইমিংয়েরই খেসারত গুণে। তার আগে ১৬ বলে করেছেন ১৫ রান। তবে অন্য প্রান্তে সুবাস ছড়িয়েছেন লিটন।

কটরেলের করা তৃতীয় ওভারে এসেছে ১৩ রান, এর মধ্যে লিটন তিন চারে একাই তুলেছেন ১২। তিনটি শটই ছিল নান্দনিক। ব্রাফেটের করা পরের ওভারেও এসেছে ১৩ রান। সেই ওভারের শেষ দুই বলে লিটনের মারা দুটি ছক্কা দর্শকদের মনে থাকবে বহু দিন। দ্বিতীয় উইকেটে সৌম্য-লিটনের ৪৩ বলে ৬৮ রানের জুটিতেই মূলত প্রথম ১০ ওভারে ১ উইকেটে ৯৯ রানের দুর্দান্ত শুরু পেয়ে যায় বাংলাদেশ। পরের ওভারেই অবশ্য ছন্দপতন। কটরেলের প্রথম বলে এক্সট্রা কভারের ওপর দিয়ে তুলে মারতে গিয়ে কার্লোস ব্রাফেটের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হন সৌম্য (৩২)। ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২২ বলের ইনিংসে দারুণ কিছু শট খেলেছেন তিনিও।

আজ ২৪ প্রতিবেদক, ঢাকা


%d bloggers like this: