ঢাকা, সোমবার , ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, | ৩ পৌষ ১৪২৫ | ৯ রবিউস-সানি ১৪৪০

১৮ বছরের ঐতিহ্য ছেড়ে নিউইয়র্কে শাওনের আলাদা ‘হুমায়ূন মেলা’র আয়োজন কেন?

হুমায়ূন মেলা

হুমায়ূন আহমেদের দি¦তীয় স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন-এর সার্বিক সহযোগীতায় ‘শো টাইম মিউজিক’ও ‘হুমায়ূন মেলা’ অনুষ্ঠিত হচ্ছে নিউইয়র্কে। এ নিয়ে দ্বিতীয়বারেরর মত এই আয়োজন। অন্যদিকে কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের উপস্থিতিতে নিউইয়র্কের একটি স্কুলে ২০০২সালে ২দিন ব্যাপী ‘হুমায়ূন মেলা’র প্রবর্তন করেছিলো মুক্তধারা ফাউন্ডেশন।
মুক্তধারা ফাউন্ডেশন’র কর্নধার বিশ্বজিত সাহা একই নামে মেলা করা নিয়ে অভিযোগ তুলেছেন । বিশ্বজিত সাহা বলেন, আমরা ২০০২ সালে হুমায়ূন আহমেদের উপস্থিতিতে ‘হুমায়ূন মেলা’ শুরু করি যা বাংলা সাহিত্যে জন্য ছিলো একটি বিরল ঘটনা। কারণ রবীন্দ্রনাথ ছাড়া জীবিত আর কোনো বাঙালি সাহিত্যিককে কখনো কোনো মেলা হয়নি। তারপর থেকে আমরা ধারাবাহিক ভাবে ২০১২ সাল পর্যন্ত তাঁর জন্ম দিনে দিনব্যপী ‘হুমায়ূন মেলা’র আয়োজন করে আসছি নিয়ে। তিনি মারা যাবার পর ২০১৩ থেকে আমরা তাঁর প্রয়াণ দিবসও পালন করি।বিশ্বজিত সাহা আরো বলেন, মুক্তধারা ১৮ বছর ধরে যে ‘হুমায়ূন মেলা’ করে আসছে হঠাৎ করে শাওন কেনো এই নাম ছিনতাই করতে চাইছেন আমার বোধে আসে না। যিনি এখন এই আয়োজন করছেন তাঁকে আমি ব্যক্তিগত ভাবে জানিয়েছি আমরা দেড় যুগ ধরে ‘হুমায়ূন মেলা’ আয়োজন করছি আপনি তাকে নিয়ে কিছু করতে চাইলে অন্য নামে করুন দয়া করে।তিনি শোনেননি। অন্যায় আচরণ করছেন।’

নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক ঠিকানা পত্রিকার ২০০২ সালের ২১জুন সংখ্যার সংবাদে দেখা গেছে, জ্যাকসন হাইটসের একটি স্কুলে ২০০২ সালের ১৫ ও ১৬ জুন ‘হুমায়ূন মেলা’ অনুষ্ঠিত হয়। সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তৎকালিন জাতিসংঘের নিযুক্ত স্থায়ী প্রতিনিধি ড. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী। প্রধান বক্ত ছিলেন বিটিভির সাবেক প্রযোজন বেলাল বেগ। বক্তব্য রাখেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশেল কনসাল জেনারেল রফিক আহমেদ খান, চ্যনেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর।

এদিকে শো টাইম মিউজিক ৭-৮ অক্টোবর কুইন্স প্যালেসে দ্বিতীয় বারের মতো ‘হুমায়ূন মেলা’ আয়োজন করছে । বিনা টিকিটের এই মেলা প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে। এতে গান গাইবেন মেহের আফরোজ শাওন, এস আই টুটুল সায়রা রেজাসহ আরো অনেকে। মেলায় থাকবে সেমিনার -আলোচনা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। মেলায় শাড়ি গহনার স্টলও থাকবে।
অভিযোগের প্রেক্ষিতে মেহের আফরোজ শাওন’র সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নিউইয়র্কে এমন কোনো আয়োজন হয় আমরা জানা নাই। কোনো কিছুর নাম রেজিস্টেশন করা না থাকলে একই নামে মেলা করা যাবে না বিশ্বেও এমন কোনো দেশে এমন কোনো আইন নাই। । হুমায়ূন আহমেদে পরিবার হিসেবে আমাকে মুক্তধারা’র জানানো একটি ভদ্রতা ছিলো বলে আমার মনে হয়। উনি এই ভদ্রতা করেন নাই। আর আমি কোন মেলায় থাকবো কি নামে মেলা করবো এটা আমার ব্যক্তিগত বিষয়।

মেহের আফরোজ শাওন আরো বলেন, হুমায়ূন আহমেদ মারা যাবার পর তাঁকে নিয়ে যদি কিছু করতে হয় তাহলে আমাকে জানানো উচিৎ। হুমায়ূন আহমেদের উপস্থিতিতে যে মেলা মুক্তধারা প্রবর্তন করেছিলো তা আজীবন মুক্তধারাই করবে এমন কি কোনো লিখিত হুমায়ূন আহমেদ দিয়ে গেছেন ?


%d bloggers like this: